Published On: বুধ, জুলাই 5th, 2017

কাগজকল বাঁচাতে রাষ্ট্রপতি পদে মনোনয়ন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর

Share This
Tags

হাইলাকান্দি (অসম) : রাজু দাস হাইলাকান্দির পাঁচগ্রামের এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। বরাকের একমাত্র বৃহৎ শিল্পপ্রতিষ্ঠান পাঁচগ্রামে অবস্থিত কাছাড় কাগজকল (হিন্দুস্তান পেপার কর্পোরেশন)-কে বাঁচাতে এক অভিনব পন্থা বেছে নিয়েছেন এই যুবক। তিনি বন্ধ কাগজকলের সমস্যাকে সর্বভারতীয় স্তরে তুলে ধরার কৌশল হিসাবে রাষ্ট্রপতি পদে মনোনয়ন দাখিল করেছেন। তিনি ভালো করেই জানতেন, তার মনোনয়ন বাতিল হবে। কিন্তু এই পথে হেঁটে রাজীব জাতীয় সংবাদ মাধ্যমের নজরে এসে কাগজকল পুনর্জীবিত করার দাবিকে বৃহত্তর মঞ্চে নিয়ে যেতে চান। আর করেছেনও তাই। রাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন দাখিল করেছেন এই সংগ্রামী যুবক। হাইলাকান্দি জেলার পাঁচগ্রামের জাতীয় সড়কের পাশে রাজুর এক ছোট্ট পানের দোকান।

রাষ্ট্রপতি পদে দাঁড়ানোর প্রসঙ্গ তুলতে পানে চুন লাগাতে লাগাতে তাঁর এই পরিকল্পনার বিষয়ে আলোচনা করলেন রাজু দাস। বলেন, তাঁর বাবা রঞ্জিত দাস কাগজকলের একজন পুরাতন কর্মী। রাজুর ভাষায়, এই কাগজকল তাঁদের পরিবারের ভরণপোষণ জুগিয়েছে। এই মিলের প্রতিটি কর্মী এক পরিবারের সদস্য। আজ এই কাগজকলের কর্মীদের মধ্যে হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে।

রাজু জানান, গত বারো মাস থেকে কর্মীদের বেতন নেই। অনেক কর্মীর সন্তানদের পড়াশুনা বন্ধ হওয়ার মুখে। এই কাগজকলের মাধ্যমে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে কয়েক লক্ষ মানুষের জীবন-জীবিকা জড়িয়ে রয়েছে। কিন্তু আজ মৃত্যুশয্যায় শায়িত কাগজকলটি। বৃহৎ শিল্প বলতে বরাক উপত্যকার সবেধন নীলমণি এই কাগজকলকে বাঁচাতে যাঁদের সক্রিয় উদ্যোগ নেওয়ার কথা, তাঁরা নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছেন, ক্ষোভ রাজু দাসের। তবে যে কোনো মূল্যে বরাকবাসীর স্বার্থে এই মিলকে বাঁচানোর আবেদন রাখেন এই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী।২০১৫ সালের ২০ অক্টোবর থেকে কাগজকলে উৎপাদন বন্ধ। এই মিল বন্ধ হওয়ায় বৃহত্তর পাঁচগ্রাম এলাকার অর্থনীতি ভেঙে পড়ার পাশাপাশি অনেক পরিবারের নিয়মিত খাবার পর্যন্ত জুটছে না বলে তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।

রাজুবাবু মনে করেছিলেন, কাগজকলের এই সমস্যাকে জাতীয় স্তরে নিয়ে যেতে হবে। আর তা সম্ভব হবে একমাত্র সংবাদ মাধ্যমের দ্বারা। তাই সংবাদ মাধ্যমের নজরে আসার কৌশল হিসাবে তিনি রাষ্ট্রপতি পদের নির্বাচনে মনোনয়ন দাখিল করেন। স্বাধীনভাবে ব্যাবসা করে সুন্দর ভাবে পরিবারের ভরণপোষণ চালিয়ে যাওয়া রাজু দাস স্বপ্ন দেখেন কাগজকল আবার জীবিত হবে। আবার পাঁচগ্রামে লোকজনের ভিড় বাড়বে। সে জন্যই রাজু দাস বরাকের জনপ্রতিনিধি-সহ নাগরিক সমাজের কাছে কাতর আর্জি রেখেছেন এই মিলকে বাঁচানোর জন্য সামগ্রিকভাবে প্রয়াস চালাতে। রাজু বলেন, তিনি তাঁর কৌশল মতো কাগজ কলকে বাঁচানোর আন্দোলন চালাচ্ছেন। অন্যদেরও তিনি নিজেদের মতো করে কাগজকলের এই সমস্যাকে জাতীয়স্তরে নিয়ে যাওয়ার কাতর আবেদন জানিয়েছেন।

About the Author