Published On: শুক্র, জুলাই 7th, 2017

বাংলা ও চিনের মধ্যে টানাটানিতে ভারতের সঙ্গে যুক্ত হয়নি সিকিম’

Share This
Tags

পশ্চিমবঙ্গ ও চিনের মধ্যে ‘স্যান্ডউইচ’ হতে চায়না সিকিম, এরূপ মন্তব্য করলেন সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী পবন চামলিং-এর। তিনি অভযোগ করেন গত ৩০ বছরে দার্জিলিংয়ে অশান্তির জন্য এই ছোট্ট রাজ্যের কোষাগারের প্রায় ৬০ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। সিকিমের দু’টি হাইওয়েই উত্তরবঙ্গের মধ্যে দিয়ে যাওয়ার ফলে দার্জিলিংয়ে অবরোধের জন্য পর্যটকরা সিকিম পর্যন্ত পৌঁছতে পারছেন না, তার ফলে গ্যাংটকের পর্যটন শিল্প মার খাচ্ছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন চামলিং। এক অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ্যে বলেন, “সিকিমের মানুষ স্বপ্নেও ভাবেননি যে, ভারতের সঙ্গে যুক্ত হলে বাংলা ও চিনের দড়ি টানাটানির মধ্যে পড়তে হবে।” ১৯৭৫ সালে ভারতের ২২তম রাজ্য হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছিল সিকিম। দার্জিলিং ও কালিম্পংয়ের সঙ্গে ১০ নম্বর জাতীয় সড়ক দ্বারা যুক্ত সিকিম। গত ১৫ জুন থেকে দার্জিলিংয়ে অনির্দিষ্টকালের বনধের জন্য সিকিমের জনজীবন ও পর্যটন শিল্পের ভারসাম্য নষ্ট হয়েছে বলে অভিযোগ করেন চামলিং। দার্জিলিংয়ের অশান্তির জন্য সিকিমের উন্নয়নের গতি রুদ্ধ হচ্ছে বলেও প্রকাশ্য জনসভায় মন্তব্য করেছেন সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী। সম্প্রতি সিকিম সীমান্তে ভারতীয় সেনার সঙ্গে চিনা সেনার দ্বন্দ্বের ফলে পরিস্থিতি খারাপ হয়েছে আর  সেই পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রীর মন্তব্য ইঙ্গিতপূর্ণ বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহল।  চিনের সঙ্গে সীমান্ত সমস্যা যেমন মিটে যাবার নয় তেমনি দার্জিলিংয়েও গোর্খাদের অনির্দিষ্টকালের বনধে সিকিমে খাদ্যসংকট প্রকট হচ্ছে। পাহাড়ি এলাকায় গাড়ি ছাড়া দূরের রাস্তা যাতায়াত সম্ভব নয়, পেট্রল মিলছে না কোথাও। তাই রাজ্য সরকার রেশনের সাথে বিভিন্ন পেট্রোলিয়ামজাত পণ্য বিলি করতে বাধ্য হচ্ছে। এই জোড়া অশান্তির কারণে পর্যটকরাও এখন আর দার্জিলিং বা সিকিমমুখো হচ্ছেন না, ফলে ক্ষতির পরিমাণ দিন দিন বেড়েই চলেছে।

About the Author