দিল্লির বাতাস দূষিত

Share This
Tags

নয়াদিল্লি: ফের বায়ুদূষণের গ্রাসে রাজধানী দিল্লি। দিল্লিতে শ্বাস নেওয়া আবারও কষ্টকর হয়ে উঠেছে। দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ায় এবার অরবিন্দ কেজরিওয়াল সরকারের বিরুদ্ধেই ক্ষোভে সুর চড়াচ্ছেন রাজধানীর মানুষজন। অনেকেরই মতে, বায়ুদূষণ ঠেকাতে দিল্লির রাস্তায় জোড়-বিজোড় পরিবহন নীতিই যথেষ্ট নয়। দূষণ ঠেকাতে সরকারকে আরও নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। ১৯ সে নভেম্বর দিল্লির বাতাস সামান্য দূষিত ছিল। কিন্তু, ২০ সে নভেম্বর সকালে দিল্লির বাতাস আরও দূষিত হয়ে ওঠে। কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ-এর দেওয়া এয়ার কোয়ালিটি ইন্ডেক্স (একিউআই) তথ্য অনুযায়ী, দিল্লি-এনসিআর-এর বিভিন্ন জায়গায় ২০ সে নভেম্বর সকালে বাতাস ছিল দূষিত। অশোক বিহার, আনন্দ বিহার প্রভৃতি জায়গায় একিউআই ছিল ৩০৯, যা খুবই নিম্নমানের। আইটিও-তে একিউআই ছিল ২২৭, ওখলা ফেস ২-এ একিউআই ছিল ।২৯০ এবং পঞ্জাবি বাগে একিউআই ছিল ২৮৬। দিল্লির বাতাস ফের দূষিত হয়ে ওঠায় শ্বাসপ্রশ্বাস নেওয়া এখন কষ্টকর হয়ে উঠেছে। ক্ষোভ প্রকাশ করে অনেকেই বলেছেন, বায়ুদূষণ ঠেকাতে দিল্লির রাস্তায় জোড়-বিজোড় পরিবহন নীতিই যথেষ্ট নয়। দূষণ রুখতে নতুন নতুন প্রচেষ্টা করতে হবে সরকারকে। অনেকের মতে আবার, দিল্লি সংলগ্ন হরিয়ানা ও পঞ্জাবে ফসলের অবশিষ্টাংশ পড়ানো দূষণের জন্য মোটেও দায়ী নয়। কারণ, বহু বছর ধরেই হরিয়ানা ও পঞ্জাবে ফসলের অবশিষ্টাংশ পড়ানো হচ্ছে।

About the Author