Published On: বুধ, সেপ্টে. 16th, 2020

প্রবীন নাগরিক সেজে সফর করতে গিয়ে পাকড়াও

Share This
Tags

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ কোভিড পরিস্থিতিতে কয়েকটি স্পেশাল ট্রেন দিয়ে যাত্রী পরিষেবা চালাচ্ছে রেল, যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেকটাই কম। এরই মধ্যে পড়ুয়া থেকে শুরু করে মাঝ বয়সি অনেককেই ট্রেনে যাতায়াত করতে হচ্ছে। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই সুলভে টিকিট পাচ্ছেন না তারা। কোথাও আবার লম্বা ওয়েটিং লিস্টে নাম রয়েছে। ফলে সাধারণ মানুষের এখন ট্রেনে যাতায়াত করাই বিড়াম্বনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। রেল সূত্রে খবর, এই পরিস্থিতিতে অনেকেই এখন প্রবীণ নাগরিক সেজে ট্রেনে সফর করতে শুরু করেছে। ঝুঁকি নিয়ে এভাবে সফর করতে গিয়ে হেনস্থার পাশাপাশি ধরাও পড়ছেন অনেকে। জরিমানাও দিচ্ছেন। তাতেও মুক্তি নেই। জরিমানা নিয়ে ট্রেন থেকে নামিয়েও দিচ্ছেন টিকিট পরীক্ষক ও আরপিএফ। ১ সেপ্টেম্বর থেকে এই ভুয়ো প্রবীণদের বিরুদ্ধে কড়া অভিযান শুরু করেছে পূর্ব রেলের কমার্শিয়াল বিভাগ। পরীক্ষা বা শিক্ষাক্ষেত্রে যেতে গিয়ে এমনই পরিস্থিতির মুখে পড়তে হয়েছে বহু পড়ুয়াকে। টিকিট পরীক্ষকদের একাংশ এই শাস্তির ব্যবস্থাকে অমানবিক বলে বর্ণনা করেছেন। তাঁদের কথায়, এখন কমিশন প্রথা চলছে না। ফলে প্রবীণ নাগরিকদের একই ভাড়া। এই পরিস্থিতিতে কমবয়সী অনেকেই সংরক্ষিত টিকিট না পেয়ে ষাট বছরের উপর বয়স দেখিয়ে প্রবীণ নাগরিক কোটায় যাত্রা করছেন। টিকিট পরীক্ষকদের একাংশ মনে করেছেন, এখন টিকিট ভাড়ায় ছাড় নেই প্রবীণদের। ফলে প্রবীণ সেজে যাত্রা করলেও রেলের ভাড়া কম হচ্ছে না। এক্ষেত্রে শুধু প্রবীণদের যাত্রার কোটার সুযোগ নিচ্ছেন।

হাওড়ার সিনিয়ার ডিভিশনাল কমার্শিয়াল ম্যানেজার রাজীব রঞ্জন বলেন, “কমবয়সীরা প্রবীণ সেজে যাত্রা করলে আসল প্রবীণরা নিজেদের কোটায় জায়গা পাবেন না। রেল বোর্ডের নির্দেশে চলতি মাসের প্রথম থেকে এই ধরনের অভিযান শুরু হয়েছে।” পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, প্রবীণ হতে বেশ কয়েক বছর বাকি এমন যাত্রীদের এক শ্রেণীর এজেন্ট ষাটোর্ধ বয়সের টিকিট ধরিয়ে দিচ্ছেন। এটাও অবৈধ। তাই অভিযান চলছে।

About the Author