মেট্রোর মতো এবার প্রতিমা দর্শনেও ই-পাস!

Share This
Tags

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মেট্রোর কায়দায় এবার প্রতিমা দর্শনেও থাকছে ই-পাসের ব্যবস্থা। এই ই পাসই করোনা আবোহে ভিড় নিয়ন্ত্রণে আন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ হতে চলেছে। সেক্ষেত্রে ই-পাস চালু করলে ভিড় কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণ করা যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। নবান্ন সূত্রে খবর, ২৫ সেপ্টেম্বর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে শহরের পুজোর ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনায় বসবেন ফোরাম ফর দুর্গোৎসবের সদস্যরা। ওই বৈঠকে সবচেয়ে বেশি ভিড় হয় এমন ৪০টি পুজোর মণ্ডপে মেট্রোর মতো ই-পাস ব্যবস্থা চালুর প্রস্তাব মুখ্যমন্ত্রীকে দিতে চলেছে ফোরাম। মূলত মেট্রো পরিষেবায় এর সফল প্রয়োগ দেখে এবার দুর্গাপুজোয় প্রতিমা দর্শনের ক্ষেত্রেও ই–পাস আনার কথা ভাবছে কলকাতার বড় বড় পুজো কমিটির একাংশ।
গত কয়েক বছরে কলকাতার কোন মণ্ডপে কেমন ভিড় হয়েছিল সেই তথ্য ইতিমধ্যে পুলিশ ও পুরসভার কাছে থেকে জোগাড় করেছে ফোরাম ফর দুর্গোৎসব। তার মধ্যে বাছাই করা হয়েছে ৪০টি বিপুল জনপ্রিয় পুজোমণ্ডপকে। ফোরাম ফর দুর্গোৎসবের সাধারণ সম্পাদক শাশ্বত বসু জানান, ওই ৪০টি পুজোয় ই–পাসের ব্যবস্থা করার কথা ভাবা হয়েছে। এ ব্যাপারে ২৫ তারিখ মুখ্যমন্ত্রীকে জানানো হবে। তিনিই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন। ঠিক করা হয়েছে, সকাল ৮টা থেকে বিকেলের আগে পর্যন্ত যখন মণ্ডপ প্রধানত ফাঁকা থাকে, তখন এই পাস লাগবে না। কিন্তু রাতে ভিড় বাড়তে থাকার সঙ্গে সঙ্গে পড়বে ই–পাসের প্রয়োজনীয়তা। পুজো কমিটিগুলি আশাবাদী, এই পাসের প্রক্রিয়া সঠিকভাবে প্রয়োগ করা হলে ভিড় অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।শুধু ই-পাস নয় ইতিমধ্যে ফোরামের পক্ষ থেকে বর্তমান পরিস্থিতিতে পুজো আয়োজনের ক্ষেত্রে জনসাধারণ ও সরকারের কাছে কিছু প্রস্তাব রেখেছেন। যেমন, রাতে ভিড় রুখতে নিয়ন্ত্রিত আলোকসজ্জা, প্রতিমা ও মণ্ডপের উচ্চতা কমানো, মণ্ডপের ভেতরে সর্বাধিক ২৫ জন দর্শনার্থী ইত্যাদি। এবার সেই তালিকায় জুড়ল ই–পাস।
আসলে করোনা পরিস্থিতিতে আমাদের চিরায়ত পদ্ধতির অনেক কিছুই বদলে যাচ্ছে। যেহেতু রোগটি সংক্রামক, তাই বাড়তি ঝুঁকি নিতে চাইছে না কেউ। আর সে খান থেকেই নতুন নতুন ব্যবস্থার উদ্ভাবন হচ্ছে।

About the Author