নিউটাউনে অ্যাপ বেসড সাইকেল পরিষেবা।

Share This
Tags

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ নিউটাউনকে আর‌ও বেশি পরিবেশবান্ধব করে তোলার জন্য সাইকেল চালানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল কয়েক বছর আগেই। এবার সেই পরিকল্পনায় অত্যাধুনিকতার ছোঁয়া নিয়ে আসছে নিউটাউন কলকাতা ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (এনকেডিএ)। আগামী সপ্তাহ থেকে নিউটাউনে চালু হতে চলেছে স্মার্ট সাইকেল পরিষেবা। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে চালু হয়ে যাবে নিউটাউনে অ্যাপ বেসড সাইকেল পরিষেবা। ইতিমধ্যেই, এনকেডিএ-র দফতরে ১০০ টি অ্যাপ নির্ভর সাইকেল নিয়ে আসা হয়েছে। এর পাশাপাশি তৈরি করা হচ্ছে সাইকেল পার্ক করার জন্য থাকছে আলাদা ২০টি সাইকেল ‘ডকিং স্টেশন’। নির্দিষ্ট ডকিং স্টেশনগুলিতেই সাইকেল রাখতে হবে যাত্রীদের। প্রথম পর্যায়ে ডকিং স্টেশন না থাকার জন্য, নিউটাউনে সফলভাবে সাইকেল চালানো শুরু করা সম্ভব হয়নি। বহু ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে, সাইকেল পার্কিংয়ে না রেখে রাস্তার ধারে ফেলে চলে গেছেন আরোহীরা। বহু সাইকেল চুরি গিয়েছিল। অনেক সাইকেল রাস্তার যেখানে সেখানে ফেলে রাখার জন্যে ভেঙে বা রোদ- বৃষ্টিতে নষ্ট হয়েছে। এই কারণে নিউটাউনের গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলিতে অতিরিক্ত বেশ কিছু ডকিং স্টেশন তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে এনকেডিএ।

এখন থেকে সাইকেলগুলি অ্যাপ নিয়ন্ত্রিত হওয়ার জন্য প্রতিটি সাইকেলের উপর নজরদারি চালানো আর‌ও সহজ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এনকেডিএ-র চেয়ারম্যান দেবাশিস সেন বলেন, “আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে এই অ্যাপ নির্ভর সাইকেলগুলি রাস্তায় নামানোর পরিকল্পনা রয়েছে। প্রথমে ১০০ সাইকেল চালানো হবে। পরে ধাপে ধাপে চাহিদা অনুযায়ী সাইকেল সংখ্যা বাড়ানো হবে।”
কী ভাবে মিলবে এই পরিষেবা? হিডকো চেয়ারম্যান দেবাশিস সেন জানিয়েছেন, এই সাইকেল রাইড বুক করার জন্য একটি বিশেষ অ্যাপ চালু করা হবে। বিভিন্ন অ্যাপ সংস্থার গাড়ি যেমন বুক করা হয়, তেমনই ওই নির্দিষ্ট অ্যাপ মারফত ‘রাইড’ বুক করতে হবে আরোহীকে। ২০টি পার্কিং স্টেশনে এই সাইকেলগুলি রাখা থাকবে। যাত্রীরা তাঁদের প্রয়োজন মত মোবাইল ফোন থেকে রাইড বুক করতে পারবেন। প্লে স্টোর থেকে অ্যাপ ডাউনলোড করা যাবে। সেই বুকিং নির্দিষ্ট ডকিং স্টেশনে গিয়ে দেখাতে হবে। বুকিং ইউআরএল স্ক্যান করলেই তবে সাইকেলের লক খুলবে। লক খোলা মাত্র সাইকেলের যাত্রাটি ‘স্টার্ট’ হয়ে যাবে। তবে মূল রাস্তা দিয়ে নয়, নিউটাউনের বিভিন্ন স্ট্রিট দিয়ে সাইকেল চালানো যাবে। এছাড়াও নির্দিষ্ট লেন মেনেই সাইকেল চালাতে হবে।
দেবাশিসবাবু জানিয়েছেন, এবারে ডকিং স্টেশন ছাড়া সাইকেল যত্রতত্র রেখে দেওয়া যাবে না। একটি ডকিং স্টেশন থেকে অপর একটি ডকিং স্টেশন পর্যন্ত যেতে যে সময় লাগবে, তার উপর নির্ভর করবে সাইকেলের ভাড়া। অর্থাৎ, আরোহী যে পরিমাণ সময় যাতায়াতের জন্য ব্যয় করবেন, তার ভিত্তিতেই ভাড়া নির্ধারণ করা হবে। সূত্রের খবর, প্রাথমিক ভাবে এই ভাড়া শুরু হবে ১০ টাকা করে। গন্তব্যের ডকিং স্টেশনে সাইকেল রেখে ট্রিপটি ‘স্টপ’ করলে সাইকেল ফের লক হয়ে যাবে। প্রসঙ্গত, নিউটাউনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় যেমন নজরুলতীর্থ, রবীন্দ্রতীর্থ, অ্যাক্সিস মল, বিশ্ব বাংলা গেট, ফিনান্সিয়াল হাব সহ বিভিন্ন জায়গায় সাইকেল ডকিং স্টেশন তৈরি করা হচ্ছে।সাইকেল লেন তৈরি করে নিউটাউনে পরিবেশবান্ধব পরিবহণের উপর গুরুত্ব অনেক আগে থেকেই নিয়েছে রাজ্য সরকার। আশার কথা একটাই অত্যাধুনিক এই সাইকেল চুরি হবে না। প্রতিটি সাইকেল অ্যাপ নির্ভর হওয়ায় সেগুলির মধ্যে বিশেষ ট্র্যাকার রয়েছে।

About the Author