কাটোয়া-২ নং ব্লক প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের উদ্যোগে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর ৭০ জন সদস্যকে বিনামূল্যে ছাগল প্রদান।

Share This
Tags

গৌরনাথ চক্রবর্তী, কাটোয়াঃ বৃহস্পতিবার কাটোয়া-২ নং ব্লক প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের উদ্যোগে ও কাটোয়া-২ পঞ্চায়েত সমিতির সহযোগিতায় ব্লকের স্বনির্ভর গোষ্ঠীর ৭০ জন সদস্যদের প্রত্যেক গোষ্ঠী পিছু ২১ টি করে মোট ১৪৭ টি বাংলার কালো ছাগল প্রদান করা হয় । প্রত্যেক গোষ্ঠী পিছু প্রদেয় ২১টি ছাগলের মধ্যে ২০ টি স্ত্রী ছাগল এবং আগামী দিনে প্রজননের জন্য ১ টি পুরুষ ছাগল । এছাড়া বিজ্ঞান সম্মত ভাবে ছাগল পালনের লক্ষ্যে উপভোক্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় । ছাগল গুলির স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রত্যেক উপভোক্তাদের বিভিন্ন প্রকারের ওষুধ প্রদান করা হয় । ছাগলের মারাত্মক রোগ পিপি আর এর প্রতিষেধক টিকা প্রায় ২১ দিন আগে ছাগল গুলি কে প্রয়োগ করা হয়েছে যাতে এই রোগে বিতরিত ছাগলের মৃত্যু না হয়। এছাড়া প্রত্যেক উপভোক্তাকে সরকারি এপিক ব্র্যান্ডের ছাগলের দানা খাবার দেওয়া হয়। প্রদেয় ছাগলগুলির ভবিষ্যতে হঠাৎ মৃত্যুতে উপভোক্তাদের আর্থিক ক্ষতি এড়াতে ছাগল গুলির বীমার ব্যবস্থাও করা হয়।
এই উপলক্ষে কাটোয়া-২ সমষ্টি প্রাণী সম্পদ উন্নয়ন আধিকারিকের কার্যালয়ে আয়োজিত সভায় উপস্থিত ছিলেন কাটোয়া-২ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি নিষাদ সামন্ত, সহ সভাপতি জাগু প্রধান, প্রাণী সম্পদ বিকাশ আধিকারিক ডাঃ জয়কিংকর মান্না, কাটোয়া-২ নং পঞ্চায়েত সমিতির পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ সুব্রত মজুমদার, মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের কর্মাধ্যক্ষ কোরবান মিদ্দা, পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য হান্নাত আলি শেখ, তাপসী পাল, প্রাণী চিকিৎসক ডাঃ গৌতম বটব্যাল, ডাঃ সুবীর দে সহ অন্যান্য গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য বৃন্দ। কাটোয়া-২ নং পঞ্চায়েত সমিতির পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ সুব্রত মজুমদার তাঁর ভাষণে বলেন, বর্তমানে রাজ্য সরকার প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে গ্রামের গরিব মানুষদের স্বনির্ভর করার লক্ষ্যে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা গ্রহন করেছেন । তিনি উপভোক্তাদের অত্যন্ত যত্ন সহকারে বিজ্ঞান সম্মত ভাবে এই প্রাণী গুলিকে পরিচর্যা ও রক্ষণাবক্ষেণ করতে আবেদন করেন । প্রাণী চিকিৎসক ডাঃ গৌতম বটব্যাল আশা প্রকাশ করেন যে, এই ছাগল গুলি প্রশিক্ষণে উল্লিখিত বিজ্ঞান সম্মত উপায়ে প্রতিপালন করলে অবশ্যই এই উপভোক্তাদের পারিবারিক আয় বৃদ্ধি পাবে । এদিকে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর উপভোক্তারা গোষ্ঠী পিছু ২১ টি করে ছাগল, ওষুধ, প্রশিক্ষণ ও বীমার সুবিধা পেয়ে খুব খুশী। পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি নিষাদ সামন্ত উপস্থিত সকলকে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিভিন্ন দফতর কর্তৃক নানাবিধ পরিষেবা গ্রহণ ও সঠিক ভাবে রূপায়ণের মাধ্যমে সাধারণ মানুষ কে স্বনির্ভর করার এই প্রয়াস কে সফল করার আহ্বান জানান ।

About the Author